Ameen Qudir

Published:
2017-12-15 07:35:59 BdST

স্বাস্থ্য নিয়ে সদর্থক কিছু করতে হলে যা জরুরী


 

 




 

 

 

 


ডা. রেজাউল করীম, কলকাতার প্রখ্যাত লোকসেবী চিকিৎসক
____________________________

·
স্বাস্থ্য নিয়ে সদর্থক কিছু করতে হলে যা জরুরী-
1) প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়াতে হবে 1200
2) প্রায় সমসংখ্যক পি এইচ এন নিয়োগ করতে হবে। 7200 নতুন সাবসেন্টার ও সমসংখ্যক গ্রামীন স্বাস্থ্যকর্মী প্রয়োজন। স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ও পুরুষ স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ করা দরকার।
3) প্রাথমিক স্বাস্থ্যে জোর দিতে হবে। সারাবছর সরকার যে রোগের পরিসংখ্যান সংগ্রহ করেন তা আরো গুরুত্ব দিয়ে করতে হবে।এজন্য পর্যাপ্ত অর্থ বিনিয়োগ করতে হবে।
4) টিকাকরণ কর্মসূচি শতকরা 90 ভাগ করতে হবে।গত বছর7300 নির্ধারিত কর্মসূচী বাতিল হয়েছিল। এবছর যেন তা নাহয় সেদিকে নজর দেওয়া দরকার।

 


5) স্বাস্থ্য বিষয়ক সব কমিটির শীর্ষে স্বাস্থ্য কর্তাদের রাখা জরুরী।
6) স্বাস্থ্য আধিকারিকদের মর্যাদা ও ক্ষমতা বৃদ্ধি করা দরকার। পে টু পোস্ট ও বিশেষ অর্থনৈতিক সুবিধা দেওয়া উচিত।

 


প্রাথমিক স্বাস্থ্যে কেন্দ্রীয় বরাদ্দ কমছে। এই বরাদ্দ শুধু গত বছরে কমেছে 3500 কোটি টাকা। এর বিরুদ্ধে দলমতনির্বিশেষে সবারই প্রতিবাদ করা দরকার।
মধ্যমবর্গীয় হাসপাতাল ও সামগ্রিক চিকিৎসা প্রদানকারী সংস্থাগুলি পরিচালন পদ্বতি ও আইন-
1)সরকারী স্বাস্থ্যবীমা যোজনা সর্বস্তরে চালু করা দরকার। অন্ধ্রপ্রদেশের বেশিরভাগ মানুষ যদি এই যোজনার সুযোগ নিতে পারেন, আমরা কেন পারবো না? অর্থ রাশি 30হাজার থেকে বাড়িয়ে 1লক্ষ টাকা করা দরকার।

 

 


2) কোন বেসরকারি সংস্থা বা বেসরকারী থার্ড পার্টি বীমা যোজনা থেকে দূরে রাখতে হবে।
3) শ্রীনাথ রেড্ডি কমিশন মেনে রাজ্য সরকার আপৎকালীন, ইনডোর ও আউটডোর পরিষেবা ঢেলে সাজাতে পারে। মনে হয় যদি সরকার পরিচালিত বীমা যোজনার সাথে এই ব্যবস্থা যুক্ত করা যায় তাহলে আউট অফ পকেট খরচ অনেক কম হবে। রাজ্য সরকারের বাড়তি খরচও হবে না।
4) ক্লিনিক্যাল এস্টাব্লিশমেন্ট আইনের 2 নম্বর ধারা থেকে চিকিৎসক ও সেবিকাদের বাদ দেওয়া উচিত। ছোট বেসরকারী পরিষেবা গুলিকে ও ব্যক্তিগত চেম্বার গুলিকে বাঁচানোর জন্য কার্যকরী পদক্ষেপ করতে হবে।

 


5) প্রাইভেট-পাব্লিক পার্টনারশিপ প্রতিষ্ঠানগুলির পুনর্মূল্যায়ন করা জরুরী। সরকার এগুলি নিজে চালালে কম খরচ হবে ও সাধারন মানুষ বেশি উপকৃত হবেন।
6) স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসক নিগ্রহ রোধ করতে সরকারকে কার্যকরী পদক্ষেপ করতে হবে। যেসব ঘটনা ঘটেছে সেগুলির বিচার একটি প্রাথমিক পদক্ষেপ। স্বাস্থ্য মন্ত্রী জনগনের কাছে কড়া বার্তা দিলেই এসব ঘটনা কমে যাবে।

 


7) স্বাস্থ্য বাজেট বরাদ্দ 6000 কোটি করা দরকার বলে সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় মন্তব্য করা হয়েছে।আমাদের ও দাবী সরকার রাজ্যের উৎপাদনের নিরিখে 3 % স্বাস্থ্য খাতে খরচ করুক।


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়