Ameen Qudir

Published:
2017-01-03 13:14:41 BdST

পুলিশ জনগণের বন্ধু-র সত্যতা রাস্তা পারাপারে জেনেছি


 

 

ডা. নাসিমুন নাহার
_______________________


আমার মাঝে প্রবল 'রাস্তা পারাপার ভীতি' কাজ করে। সাধারণত আমাকে রাস্তা পার হতে হয় না। আজীবন আইলস্যা স্বভাবের এই আমি নড়াচড়া যাতে কম করতে হয়, সেজন্য ইচ্ছে করেই অফিস ছাড়া খুব কমই বাসা থেকে বের হই ।

 

তারপরেও আমাকে অনেক সময়ই নিজের একমাত্র মূল্যবান সবেধন নীলমণি জীবনটাকে হাতের মুঠোয় নিয়ে রাস্তা পার হবার মতো ভয়ংকর কাজটা করতেই হয়।এই ইস্যু নিয়ে যদি লিখি কয়েক পাতার বই লেখা সম্ভব।

টুকরো টুকরো কিছু ঘটনা শেয়ার করলাম ।

শুধুমাত্র রাস্তা পার হবার সৌজন্যে বহু অপরিচিত ছেলেকে আমি বেচারি টাইপ লুকস দিয়ে মুখে হাসি ঝুলিয়ে বলেছি - এক্সকিউজ ভাইয়া, প্লিজ আমাকে একটু রাস্তা পার করে দিবেন ? অতঃপর ঐ বালকের শার্টের কর্নার ধরে টুকুস করে রাস্তা পার হয়েই, তাকে কোন কথা বলার সুযোগ না দিয়েই,ঝপাৎ করে thank you so much বলেই, দ্রুত তার বিস্ময় দৃষ্টি পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে গিয়েছি।


কত পুলিশ আংকেল কে যে যন্ত্রণা দিয়েছি এই রাস্তা পার হওয়া নিয়ে।একবার মতিঝিলে আহুকে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি।আমাদের গাড়ি রাস্তার উল্টো দিকে।ড্রাইভার পারছে না গাড়ি ফেলে রাস্তা পার হতে।আর আমি তো as usual ফ্রিজ হয়ে দাঁড়িয়ে আছি ।সবাই এপার ওপার করছে।দশ পনের মিনিট পরে ট্রাফিক আংকেল বললেন -- ম্যাডাম আপনি আজ এখানেই দাঁড়িয়ে থাকবেন ?

প্রায় কান্না কান্না ভাব এনে বললাম--আংকেল আমাকে হাসপাতালে যেতে হবে, ডিউটি আছে। কিন্তু আপনি তো দেখছেন আমি কিছুতেই ঐ পাড়ে যেতে পারছি না।পুলিশ আংকেল বললেন - আপনি ডাক্তার ? আগে বলবেন না ? চলেন আমি পার করে দিচ্ছি।একহাতে আংকেল আহুকে আর একহাতে আমাকে ধরে পার করে দিলেন।এরপর আরো অনেকবার ঐ রাস্তায় তার সাথে আমার দেখা হয়েছে । পুলিশ জনগণের বন্ধু কথাটির সত্যতা তাকে দেখে জেনেছি ।

আর একবার ঢাকা ময়মনসিংহ হাইওয়েতে হোতাপাড়াতে গাড়িতে একটা সমস্যা হওয়ায় একটা ফিলিং স্টেশনে গাড়ি গ্যারেজ করা হলো।ওখানে জাস্ট রাস্তার উল্টো দিকে আমার একটা অফিসিয়াল কাজ ছিল।একে তো হাইওয়ে তার উপরে 'এনা সৌখিন নিরাপদের স্পিড'- ভয়েই শেষ আমি।হাইওয়েতে রিক্সাও নেই। কয়েক বার চেষ্টা করেও দৌড় দিতে পারলাম না । কঠিন বিপদ।আমাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে এলেন সাউথ ইস্ট ব্যাংকের এটিএম বুথের সিকিউরিটি গার্ড মামা।বললেন আহেন আমার লগে।অতঃপর বিশাল রাস্তাটা তিনি আমাকে মোটামুটি হাতে ধরেই পার কর দিলেন।

ইদানিং রাস্তা পারাপার ভীতি আরো বেড়েছে।সাইকেল দেখলেও ফ্রিজ হয়ে যাচ্ছি।আজ সকালে ক্যান্টমেন্টের মতো নিরিবিলি ভীড়হীন নিরাপদ রাস্তায় একজন সাইকেল আরোহী আমাকে বলেছে -- প্লিজ এভাবে রাস্তার মাঝখানে স্ট্যাচু স্ট্যাচু খেলবেন না !

________________________________

ডা. নাসিমুন নাহার । জনপ্রিয় কলাম লেখক।


কলাম এর জনপ্রিয়