|

এই সময়ের ডাক্তার:নষ্ট সময়ে পিষ্ট হয়ে গিনিপিগের মত বেঁচে থাকা


Published: 2017-12-09 13:11:04 BdST, Updated: 2018-01-22 14:30:56 BdST

 

 

 

 

 

 

 


অধ্যাপক ডা. অনির্বান বিশ্বাস,

কলকাতার বিশিষ্ট লোকসেবী
চিকিৎসক। কবি ও চিন্তক।
____________________________

 


এই অশুদ্ধ সময়,আমাদের ডাক্তারদের ক্রমাগত পরিহাস করে।
আমাদের অক্ষমতাকে বার বার মনে করিয়ে উচ্চ স্বরে বলে,নষ্ট সময়ে পিষ্ট হয়ে তোমরা গিনিপিগের মত বেঁচে থাক।
বেঁচে আছি আমরা ? আমরা নাকি রুগীদের বাঁচাই ! এখন এমন পরিহাস,নিজেদের বাঁচানোর চেষ্টা করি।রাজরোষ,মিডিয়া রোষ,জনরোষ।অথচ,ডাক্তারেরা সেই মানুষ,যাঁরা নিজেকে যত গড়েছে, তার চেয়ে ঢের বেশী বিচূর্ণ করেছে।

 

 


যখন রুগী,মনে অনেক স্বপ্ন রেখে আশা নিয়ে রোগ সারাতে আসে,যত দুরারোগ্যই হোক, ডাক্তার দীর্ঘশ্বাস চেপেই লেখে রূপকথার চিঠি ; রুগীর কাছে সেই রংধনুর সাত রং মাখা বর্ণমালার ঘ্রাণ অবিকল বেলীফুলের মতো।এখনও তাই। বিচ্যুতি চিরকাল থাকে,সমস্ত বৃত্তিতে।তাই বলে তাকে ডাক্তারি জীবিকায় এমন সার্বজনীন করা পৃথিবীর ইতিহাসে হয় নি।
আমাদের অনিদ্রার রাতগুলো এখন আরও দীর্ঘ হয় ! তাতে হয় কি, স্বত্বা অভিনিবিষ্ট সতর্কতায় প্রতিটি হতঃশ্বাসের হিসাব মিলাতে চায়।মিলাতেই চায়।যা হয়,এসব চুলচেরা বিশ্লেষণের আদৌ কোন গন্তব্য নেই।সমাধান নেই।অসহ্য রাতগুলোতে তখন প্রবল হয়ে ওঠে নিজের বোধহীন-জড়ত্বের বাসনা।
আমি প্রতীক্ষায় থাকি একটি নতুন ভোরের ;ভোর আর আসেনা।
যা আসে ...

 

 


-এত হাপাচ্ছেন,কষ্ট হচ্ছে।ইনহেলার গুলো বন্ধ রেখেছেন ! এভাবে চিকিৎসা হয় ! সঙ্গে কেউ নেই কেন ?
-কে আসবে বলুন।স্ত্রী দেড় বছর আগে মারা গেছেন।মেয়ে ছয়মাস আগে,ব্রেস্ট ক্যান্সারে।আমার এখন ইনহেলার নেওয়া না নেওয়া সমান ডাক্তার বাবু ! কি হবে নিয়ে !
-এমন যদি ভাবেন,তাহলে এখন চিকিৎসা করতে চাইছেন কেন?


-আসলে আমার ছেলেটি পরশুদিন বাইক অ্যাক্সিডেন্ট এ মারা গেছে ;মর্গ শ্মশান এসব করে হাঁপানিটা বেড়ে গেল।কাল ওর কাজ ;অপঘাতে মৃত্যুতো,তাই তিন দিনে কাজ..এইটুকু কাজ আমার বাকি আছে..হাঁপটা কমিয়ে দিন না আপনি....


সত্তোর বছরের বৃদ্ধ ভীষন হাঁপাতে হাঁপাতে টকটকে লাল চোখে ডাক্তারের দিকে তাকিয়ে থাকেন !
******************************************************
যন্ত্রনার নোনা জলে ​ঝাপসা চারিপাশ
​বড্ড অসময়ে সবকিছু বেকায়দায় ; ভালো নেই কেউ
জন্মেছি ডোমের লগ্নে , চিতায় আমার লাশ আমিই খোঁচাই,
​কখনো এ পাশ, কখনো ও পাশ..

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।