|

মেডিকেল ছাত্রদের ওপর শিক্ষকদের সীমাহীন পীড়ন নিয়ে এক পিতার আর্তি


Published: 2016-12-29 16:52:35 BdST, Updated: 2017-06-22 22:30:53 BdST

 

 

 




কমল বড়ুয়া

____________________

আগামী ১ জানুয়ারি থেকে সব মেডিকেল কলেজে ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষা শুরু হবে। কিন্তু ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের প্রায় ২৫ জন ছাত্রকে ফাইনাল পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। তাঁরা সবাই দ্বিতীয় প্রফেশনাল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। তৃতীয় বা ফাইনাল পরীক্ষা দিতে না পারলে তাঁদের কমপক্ষে আরও ছয় মাস বসে থাকতে হবে। এতে তাঁরাসহ ক্ষতিগ্রস্ত হবে তাঁদের পরিবার।

একজন ছাত্রের ছয় মাস পিছিয়ে যাওয়া যথেষ্ট ক্ষতির কারণ। এই নিষ্ঠুর নিয়ম আর কোনো মেডিকেল কলেজে নেই। অভিজ্ঞতায় দেখলাম, মেডিকেল ছাত্ররা শিক্ষকদের নিষ্ঠুর পীড়নের মধ্যে পড়াশোনা করেন। রাজনীতি ছাড়া অন্য কোনো বাস্তব কারণে কোনো ছাত্র যদি পিছিয়ে পড়েন, তাহলে সহানুভূতির পরিবর্তে তাঁর সঙ্গে সীমাহীন নিষ্ঠুর আচরণ করা হয়। চরম নির্যাতনের মধ্য দিয়ে ছাত্রজীবন অতিবাহিত করার পর তাঁরা যখন পাস করে বের হন, তখন চিকিৎসকেরা রোগীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। মেধাবী ছাত্রদের এই চিকিৎসাশাস্ত্র অধ্যয়নকালের খবর আমরা কেউই তেমন একটা রাখি না। আমার মেয়েটা পরীক্ষা দিতে পারলে উপকৃত হব, দেশ উপকৃত হবে।

______________________

কমল বড়ুয়া, চট্টগ্রাম।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।