|

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, বাংলাদেশে অধ্যাপক ডাক্তারদের ফি ১০ থেকে ৩০ টাকা


Published: 2016-12-28 17:49:30 BdST, Updated: 2017-11-24 13:22:12 BdST

 

নিশাত সুলতানা ,প্রবাসী ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট

__________________________

বাংলাদেশে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের কনসালটেশন ফি মূলত: ১০ টাকা থেকে ৩০ টাকা। বিশ্বের যে কোন দেশের তুলনায় বাংলাদেশে চিকিৎসা ব্যয় নামমাত্র। ব্যবস্থাপনাগত সঙ্কট বা জটিলতার কারণে রাষ্ট্র সবার কাছে সেবা পৌঁছাতে না পারলেও খরচকে রেখেছে কল্পনাতীত কম।

শুধু ব্যখ্যা ও প্রচারণার অভাব এবং মহল বিশেষের অপপ্রচার ও মিথ্যা প্রপাগান্ডার কারণে আসল সত্য আড়ালে থেকে যাচ্ছে।
যখন আমরা কুর্মিটোলা হাসপাতাল বা অনুরুপ প্রতিষ্ঠানের প্রচার দেখি-- মাত্র ১০ টাকায় সর্বধরণের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা। তখন আবেগে আপ্লুত হয়ে ভুলে যাই যে, কুর্মিটোলা হাসপাতাল কোন দাতব্য প্রতিষ্ঠান নয়। এটা সরকারি অর্থে প্রচলিত হাসপাতাল ।

শুধু কুর্মিটোলা হাসপাতাল নয়, দেশের সকল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল , জেলা হাসপাতাল সহ সরকারি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো মাত্র ১০ টাকা থেকে ৩০ টাকা নিয়ে মেডিকেল অফিসার টু প্রফেসর পর্যন্ত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা দিয়ে থাকে।

কেন এই সত্য সবার চোখে আসে না। বা মিডিয়া প্রকাশ করে না । তার কারণ নানাবিধ। প্রথমত অজ্ঞতা।
আরেকটা প্রধান কারণ হল, সবাই হাসপাতালে চিকিৎসা না নিয়ে চেম্বারের চিকিৎসা নেয়ার জন্য মুখিয়ে থাকেন।
ভুক্তভোগীরা বুঝতে চান না, চেম্বার হল, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। বেসরকারি ব্যবসা। সেখানে অন্য সব বেসরকারি পেশার মত এক জন পেশাজীবী তার দস্তুর মত ফি নিতে পারেন।
একজন জেলা পর্যায়ের উকিল যে ফি নেন, নিশ্চয়ই ড. কামাল হোসেন বা রফিকুল হক -- একই অঙ্কের ফি নেন না।
বাংলাদেশে একমাত্র ডাক্তারী ও সরকারি স্কুল কলেজের শিক্ষা বাদে আর কোন সেবা এমন জলের দামে পাওয়া যায় না।
এমন কি মৌলিক অধিকার বাসস্থান ও খাদ্যও এদেশে প্রতিযোগিতার সোনার দরে কিনতে হয়।

অাপনি কোন স্বাস্থ্য সমস্যায় পড়েছেন , আপনার পর্যাপ্ত টাকা পয়সা না থাকলে আপনি কি ঢাকার এপোলো , ইউনাইটেড বা ল্যাবএইড বা কলকাতা দিল্লির বা ব্যাঙ্গালোরের কোন ফাইভস্টার হাসপাতালে যাবেন। যদি নাই যান , তবে রাতে বেসরকারি ভাবে এপোলো-পপুলার, অঅনোয়ার খান বা বিআর বি হাসপাতাল মার্কা থ্রি বা ফোর স্টার চেম্বারে বসা ডাক্তারের কাছে কেন যাবেন।

আপনি কেন দেশের সর্বোচ্চ-- বিএস এম এম ইউ, পিজি বা ঢাকা মেডিকেলে যাবেন না। অন্যসব সরকারি মেডিকেলে কেন যাবেন না। কেন চেম্বারে ছুটবেন। সরকারি মেডিকেলে আপনি চেইন চিকিৎসা পাচ্ছেন। মেডিকেল অফিসার , নার্স, ব্রাদার সেবা পাচ্ছেন। দরকারে আপনি প্রফেসর দের কনসালটেন্সিও পাচ্ছেন। সারা পৃথিবীর উন্নত দেশে এটাই রেওয়াজ। মেডিকেল সেবা একটা চেইন। যা মেডিকেল অফিসার, ইন্টার্ন ডাক্তার দিয়ে শুরু হয়। দরকারে অধ্যাপক বিশেষজ্ঞ পর্যন্ত
পৌঁছায়। সরকার যদি এই সেবা সর্বস্তরে পৌছে দেয়, চেম্বারের ডাক্তাররা গরীব রোগীর দেখা পাবেন না।
পিজি বা কুর্মিটোলা মার্কা সরকারি হাসপাতালে
এই পুরো সেবার জন্য আপনার দরকার, ১০ টাকা থেকে ৩০ টাকার একটা আউটডোর টিকেট।


শুধু বাতাসে গালি দিলে হবে না।


আমি নিশাত সুলতানা ডাক্তার নই। অামি ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট। কানাডায় আসার আগে অামি ঢাকায় শীর্ষ বেসরকারি ভার্সিটির শিক্ষকতা করেছি। তখন বিএস এম এম ইউতে একটা কোর্স করতে গিয়েছিলাম।

তখন দেখেছি, মাত্র ৩০ টাকার টিকেট কেটে পিজিতে সর্বোচ্চ পর্যায়ের সেবা পাওয়া যায়। আমি কখনওই কোন ডাক্তারের চেম্বারে যাই নি। আমার অনেক বড়লোক আত্মীয়কে ৩০ টাকার টিকেট কেটে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি।
কোন ডাক্তার বা প্রফেসর আমাকে বাধ্য করে নি চেম্বারে যেতে।

বাধ্য করার দরকারও নেই। বেশীর ভাগ ডাক্তার চেম্বারে এত রোগী পান যে , রাত কাটে চেম্বারেই বলা যায়।
চেম্বারে
কারা যায় । কেউ ফুসলিয়ে নিয়ে যায়।
না , যায় না। পিজিতে দেখেছি হাজার হাজার রোগী লাইন দিয়ে সেবা নিচ্ছেন। দিল্লিতে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সেস বা এইমসএ যে ব্যবস্থা; প্রাণ গোপাল দত্ত স্যার সেই মহত ব্যবস্থাই এখানে চালু করার সিস্টেম করে দিয়ে গেছেন। নিশ্চয়ই এতদিনে সেকাজ আরও এগিয়েছে। এইমসএ সেবা পাওয়ার যে সিস্টেম ; সেই সিস্টেম বিএস এম এম ইউতেও চালু। শুনেছি অনেকদিন ধরে যে, এটি নন প্রাকটিসিং হচ্ছে। এটা জরুরি দরকার। এইমসএর ডাক্তাররা কেউ আউট প্রাকটিস করতে পারেন না। বেতন দিয়ে তাদেরকে পুষিয়ে দেয়া হয়।

যতই গাল মন্দ করা হোক না কেন, বাংলাদেশে এখনও স্বাস্থ্যসেবা মূল্য প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ১০০ টাকারও নীচে। বাংলাদেশে সর্বোচ্চ পিজি বা ঢাকা মেডিকেলে মেডিকেল অফিসার টু প্রফেসর পর্যন্ত মাত্র ৩০/৪০ টাকায় দেখান যায়। এর চাইতে কমে কি করে সম্ভব।

কিন্তু সমস্যা অন্য জায়গায় , কি কোটিপতি জহুরুল ইসলাম গং কিংবা বাস ড্রাইভার-- সবাই এপোলোতে চিকিৎসা করাতে চাইলে কেমন করে হবে। আমেরিকায় সরকারি সেবা আর হুমায়ুন আহমেদ স্যারে র যেখানে চিকিৎসা হয়েছিল, কিংবা সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথের খরচ নিশ্চয় এক না।

_______________________
লেখক
নিশাত সুলতানা ,প্রবাসী ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট । কানাডার মনট্রিয়লে বাস করেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।